বুধবার, ১৭-জুলাই ২০১৯, ০৯:৪০ অপরাহ্ন

পুলিশের কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের মাপকাঠি কী?

shershanews24.com

প্রকাশ : ২৯ মার্চ, ২০১৯ ০৪:৪১ অপরাহ্ন

নূর আলম: প্রতিবছরই পেশাগত দক্ষতা ও কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের জন্য পুলিশ সদস্যদের পদক দেয়া হয়৷ পুলিশ সপ্তাহে এই পদক বিতরণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী৷ এবার পদক পেয়েছেন মোট ৩৪৯ জন৷ তবে কয়েকটি পদক জয়ের কারণ নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে৷
 অপরাধ দমন, মাদক নিয়ন্ত্রণ, আসামি গ্রেপ্তার, জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বা জীবন বিপন্ন করে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় কাজ করা পুলিশ সদস্যদের পদক পাওয়ার প্রচলিত মাপকাঠি৷ তবে এবার কোটা সংস্কার আন্দোলন ও নিরাপদ সড়ক আন্দোলন নিয়ন্ত্রণের বিষয়টি কৃতিত্বপূর্ণ অবদান হিসেবে বিবেচনায় নেয়া হয়েছে৷ এমনকি কোটা সংস্কার আন্দোলনের যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খান এবং আলোকচিত্রী ড. শহিদুল আলমকে গ্রেপ্তারের বিষয়টিও  কৃতিত্বপূর্ণ অবদান হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে এর জন্য পদক দেয়া হয়েছে৷
পুলিশে সাহসিকতা ও কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের জন্য চার ধরনের পদক বা পুরস্কার চালু আছে৷ এগুলো হলো: বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম),  বাংলাদেশ পুলিশ পদক বিপিএম (সেবা), রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক (পিপিএম) ও রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক (সেবা)৷ পদকের সঙ্গে বিপিএম-এর জন্য সম্মানী হিসেবে এককালীন এক লাখ টাকা এবং মাসিক দেড় হাজার টাকা, বিপিএম সেবার জন্য এককালীন ৭৫ হাজার টাকা এবং মাসিক দেড় হাজার টাকা,  পিপিএম-এর জন্য এককালীন ৭৫ হাজার টাকা ও প্রতি মাসে এক হাজার টাকা এবং পিপিএম-সেবা পদকের জন্য এককালীন ৫০ হাজার টাকা ও মাসিক এক হাজার টাকা পান পদক প্রাপ্তরা৷ অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে এবারই সবচেয়ে বেশি সংখ্যক পুলিশ সদস্য এই চার ক্যাটাগরিতে পদক পেয়েছেন৷  সাধারণত দুই ক্যাটাগরির সেবা পদক পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তাদের তাঁদের কাজের জন্য দেয়া হয়৷
ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ ( ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া এবার বাংলাদেশ পুলিশ পদক পেয়েছেন৷ ১০ ধরনের কৃত্বিপূর্ণ অবদানের জন্য তাঁকে এই  সর্বোচ্চ পুলিশ পদক দেয়া হয়েছে৷ অবদানগুলোর মধ্যে দু'টি হলো: ‘নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলন' চৌকষ ও বুদ্ধিদীপ্ত পন্থায় সুষ্ঠুভাবে নিয়ন্ত্রণ ও চাকরিতে কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ন্ত্রণ৷
নিরাপদ সড়কের দাবিতে স্কুল ছাত্রদের আন্দোলন ও কোটা সংস্কার আন্দোলনের ব্যাপারে আগাম গোয়েন্দা তথ্য দেয়ার জন্য পদক পেয়েছেন পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক মীর শহীদুল ইসলাম৷
একই কৃত্বিপুর্ণ কাজের জন্য পদক পেয়েছেন এসবির উপ-মহাপরিদর্শক মাহবুব হোসেন, বিশেষ পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান, এসবির পুলিশ পরিদর্শক এ কে এম সাহাবুদ্দীন শাহীন এবং  উপ-পরিদর্শক মো. মহিউদ্দীন৷
বলা হয়েছে, কোটা সংস্কার আন্দোলনকে সরকারবিরোধী রাজনৈতিক জোট পুঁজি করে নাশকতার চেষ্টা করেছে৷ তাঁরা তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে কুচক্রী মহল শনাক্ত করেন৷ তাঁরা আগাম জানতে পারেন ষড়যন্ত্র করে  নিরাপদ সড়ক ও কোটা সংস্কার আন্দোলনকেসরকার পতনের আন্দোলনে রূপ দিতে পারে৷
একই ধরনের কৃতিত্বের জন্য পদক পেয়েছেন গোয়েন্দা বিভাগের সিনিয়র সহকারি পুলিশ কমিশনার মো. শাহাদত হোসেন সুমা ও ডিএমপির ওয়ারী বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মোহাম্মদ নূরুল আমীন৷
 আলোকচিত্রী ড. শহিদুল আলমকে গ্রেপ্তার করাকে কৃতিত্বপূর্ণ কাজ হিসেবে বিবেচনায় নেয়া হয়েছে৷ গোয়েন্দা বিভাগের  অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার কাজী শফিকুল আলম মোট আটটি কৃতিত্বপূর্ণ কাজের জন্য পুরস্কার পেয়েছেন৷ তার মধ্যে ড. শহিদুল আলমকে গ্রেপ্তার করা একটি৷
কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা রাশেদ খানকে গ্রেপ্তার করে পদক পেয়েছেন গোয়েন্দা বিভাগের উপ-কমিশনার মো. আশিকুর রহমান৷ তাঁর সাত কৃতিত্বের মধ্যে রাশেদকে গ্রেপ্তার একটি অন্যতম কৃতিত্ব৷ রাশেদকে বলা হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ে নৈরাজ্য সৃষ্টির মদদদাতা৷
মানবাধিকার কর্মী এবং সাবেক তত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল এ প্রসঙ্গে গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘‘নিশ্চয়ই অনেক পুলিশ সদস্য দেশের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় তাঁদের কৃত্বিপূর্ণ অবদানের জন্য পুরস্কার পেয়েছেন৷ তাঁদের অভিনন্দন জানাই৷ কিন্তু এরসঙ্গে আরো কিছু কৃতিত্বের কথা বলে যে পুরস্কার দেয়া হয়েছে, তা শুনে আমি অবাকই হয়েছি৷ নিরাপদ সড়ক জনগণের অত্যন্ত একটা গুরুত্বপূর্ণ দাবি ছিল৷ সেই আন্দোলন দমন করার জন্য কেন পুলিশ পুরস্কৃত হবেন? কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে পুলিশের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ ছিল৷ শহিদুল আলম একজন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ব্যক্তি৷ তাঁকে যে কারণে গ্রেপ্তারের কথা বলা হচ্ছে, তা এখনো প্রমাণ করা যায়নি৷ এসব কাজের জন্য যদি পুরস্কৃত করা হয়, তাহলে তো বলতেই হবে, তাদের জনস্বার্থবিরোধী কাজের জন্য পুরস্কৃত করা হয়েছে৷’’
তিনি আরো বলেন, ‘‘এটা রাষ্ট্রীয় পুরস্কার৷ জনগণের অর্থে এই পুরস্কার দেয়া হয়৷ কিন্তু জনগণের অর্থে যদি জনবিরোধী কাজের জন্য পুরস্কার দেয়া হয়, সেটা তো আমাদের জন্য খুবই দুঃখজনক৷ এর মাধ্যমে পুরস্কারকে অবমূল্যায়ন করা হচ্ছে৷ পুরস্কারের মর্যাদাকে ক্ষুন্ন করা হচ্ছে৷’’
পুলিশের পুরষ্কারের মাপকাঠির এমন ধারা যদি চলতে থাকে, তাহলে এক সময় দেখা যাবে- যে পুলিশ সদস্য সাধারণ নিরীহ মানুষের উপর যত বেশি নির্যাতন করতে পারবে তাকে তত বেশি পুরষ্কার দেয়া হবে। সেই ক্ষেত্রে পুলিশের মধ্যেও নিরীহ জনগণের উপর নির্যাতনের প্রতিযোগিতা শুরু হয়ে যাবে। এবং তা কতটা ভয়ানক পরিস্থিতিতে গিয়ে পড়বে, সেটি ভাবতে গিয়ে এখনই আতংকিত হচ্ছি।